টাঙ্গুয়ার হাওর নিয়ে অবাক করা যত তথ্য

সাইফুর রহমান তুহিন

বর্ষার মৌসুমে টাঙ্গুয়ার হাওরের সৌন্দর্য দ্বিগুণ বেড়ে যায়। টাঙ্গুয়া এমন একটি ভূমি যার আকৃতি একেক মৌসুমে একেক রকম হয়। এটি নির্ভর করে পানির উচ্চতার ওপর। মেঘালয় পাহাড়ের পাদদেশে এই সুবিশাল জলাভূমি সব সময়ই দেশ-বিদেশের পর্যটকদেরকে হাতছানি দিয়ে ডাকে।

বার্ডওয়াচার বা পাখি পর্যবেক্ষকদের জন্যও এটি দারুণ জায়গা। দেশ-বিদেশের পর্যটকরা এ কথাও নির্দ্বিধায় স্বীকার করেন যে, সূর্যোদয় ও সূর্যাস্তের পরিপূর্ণ দৃশ্য উপভোগ করার জন্যও টাঙ্গুয়ার হাওর দক্ষিণ এশিয়ার সেরা জায়গাগুলোর একটি।

টাঙ্গুয়ার হাওর সম্পর্কে আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ তথ্য হলো জীববৈচিত্র্যের কারণে এটি একটি রামসার সাইট, একটি সংরক্ষিত জলাভূমি। এখানে অনেকেই যান পাখি গুনতে, পাখির কলকাকলি শুনতে ও বিভিন্ন গবেষণার কাজে।

তবে স্থানীয় লোকজনের জন্য এটি হলো একটি প্রাকৃতিক মাছের জলাধার। এই এলাকার জলজ উদ্ভিদও স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্যের অধিকারী ও দারুণ বিচিত্র প্রজাতির। এখানে শীতকালে যে কেউ উপভোগ করতে পারেন বিভিন্ন বিল, ছোট ছোট দ্বীপ ও নলখাগড়ার স্তুপ।

বার্ডওয়াচার বা পাখি পর্যবেক্ষকদের জন্যও এটি দারুণ জায়গা। দেশ-বিদেশের পর্যটকরা এ কথাও নির্দ্বিধায় স্বীকার করেন যে, সূর্যোদয় ও সূর্যাস্তের পরিপূর্ণ দৃশ্য উপভোগ করার জন্যও টাঙ্গুয়ার হাওর দক্ষিণ এশিয়ার সেরা জায়গাগুলোর একটি।

টাঙ্গুয়ার হাওর সম্পর্কে আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ তথ্য হলো জীববৈচিত্র্যের কারণে এটি একটি রামসার সাইট, একটি সংরক্ষিত জলাভূমি। এখানে অনেকেই যান পাখি গুনতে, পাখির কলকাকলি শুনতে ও বিভিন্ন গবেষণার কাজে।

তবে স্থানীয় লোকজনের জন্য এটি হলো একটি প্রাকৃতিক মাছের জলাধার। এই এলাকার জলজ উদ্ভিদও স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্যের অধিকারী ও দারুণ বিচিত্র প্রজাতির। এখানে শীতকালে যে কেউ উপভোগ করতে পারেন বিভিন্ন বিল, ছোট ছোট দ্বীপ ও নলখাগড়ার স্তুপ।

Leave a Comment

Your email address will not be published.